ধৈর্যের ফল মিঠা-ই হয় ।


°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°
By -আ,ফ,ম, ইকবাল॥

 মাঝ বয়সী মানুষটির হাতে এক গাদা কাগজপত্র। ময়লা কাপড় চোপড়, উস্কোখুস্কো চেহারা। সোজা ঢুকে পড়লেন শহরের নামকরা উকিল লস্কর বাবুর চেম্বারে। 
 - উকিল সাব, দেখুন এইসব কাগজপত্র, আমার যত কথা বলার তা ও লিখে এনেছি, এবার দেখে বলুন কত টাকা ফিজ লাগবে, আর কতদিন সময় লাগবে। যে করেই হোক ওর বাড়ির রেজিস্ট্রিটা বন্ধ করতে হবে। 
 - মইনুল, উনাকে এক গ্লাস পানি দে তো। আর চা খাবেন ? 
 - না না চা টা লাগবেনা। আপনি কাগজগুলো দেখুন, আর বলুন আমাকে ফি টা কত দিতে হবে? 
 - দেখুন, আপনার কাগজপত্র গুলো ভালো করে দেখতে হবে, আপনার বক্তব্যগুলো ও ভালো করে বুঝতে হবে, যাতে হাত দিলে আপনার কেসটা সফলভাবে বের করতে পারা যায়। তার জন্য আমাকে সময় দিতে হবে। 
 - কয়দিন সময় লাগবে আপনার? 
 - এই ধরুন তিনদিন, আপনি বরং আগামী শুক্রবার আসুন। আর একটি কথা, উকিল বাবু কি বললেন, কেসের কি হলো- এসব কেউ জিজ্ঞেস করলে কিচ্ছু বলতে যাবেন না। বলবেন সময় করে দেখাই করতে পারছেন না। 
 - ঠিক আছে, আমি তাহলে শুক্রবারই আসছি, জুমার নামাজের পর। দেখা করছি । 
 - ঠিক আছে, আসুন তাহলে। 

শুক্রবার বিকেল বেলা আবার হাজির মাহবুব মিয়া উকিল লস্করের চেম্বারে। সেই হিজিবিজি চেহারা, আলুথালু বেশ! 
চেম্বারে প্রবেশ করে দুম করে চেয়ারে বসে পড়লেন। আজ যেন আর কোনো তাড়া নেই, নেই চেহারায় সেই রাগত লালচে ভাব। 
উকিল সাবই শুরু করলেন কথা। 
-আমি আপনার সব কাগজপত্র দেখেছি, আপনার সকল বক্তব্য বুঝে নিয়েছি। সকল দলিল এবং যুক্তি অবশ্যই আপনার পক্ষে। আপনি বাবা-মা মারা যাওয়ার পর ছোট ভাই মনজুর আর বোন আমিনাকে আগলে রেখেছেন। বাবা মায়ের অনুপস্থিতি তাদের বুঝতে দেননি। ছোট ভাইয়ের লেখাপড়ার জন্য নিজে ক্লাস নাইনের পর পড়াশোনা ‌ছেড়ে দিয়েছিলেন। পড়াশোনায় খুব ভালোই ছিলেন, তবু পড়াটা ছেড়ে দিতে খুব কষ্ট হচ্ছিল নিশ্চয়? 
-সে আর বলবেন না, কি না করলাম হারামিটার জন্য! চেহারা ঘুরিয়ে অশ্রু লুকানোর বৃথা চেষ্টা! 
-ও যখন ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে চাইলো, আপনার সামর্থ্য নেই জেনেও তাকে বাধা দিলেন না। খেতের জমি বন্ধক রেখে তাকে ভর্তি করলেন। এরপর তার কলেজ ফি, মাসোহারা জুটাতে গিয়ে নিজের স্ত্রীর গয়না পর্যন্ত বিক্রি করে দিলেন। শেষ পর্যন্ত উচ্চ হারের সুদে অনেক টাকা ধারও করলেন! সেই টাকার সুদ মেটাতে গিয়ে দিন হাজিরা পর্যন্ত করতে হলো আপনাকে। আচ্ছা কিডনির ব্যাপারটা কোন সময় হয়েছিল? 
-ওই ফাইনাল সেমিস্টারে উঠার পরই ওর পেট ব্যাথা, পেশাবের অনিয়ম দেখা দিল। ডাক্তার বললেন একটা কিডনি বিকল হয়ে গেছে। সেটি ফেলে দিতে হবে। একটি কিডনি নিয়েও চলতে পারবে, কিন্তু পরিশ্রম করতে পারবে না। 
-আর তখন আপনি ভাবলেন ওকে তো পড়াশোনার জন্য পরিশ্রম করতেই হবে, তারপরও সরকারি চাকরি পেলে কত যায়গায় তাকে দৌড়াদৌড়ি করতে হবে। তাই আর কিছু না ভেবে আপনার একটি কিডনি দিয়ে দিলেন ! আপনার ধারণা ছিল ভাই মানুষ হয়ে গেলে এমনিতেই আপনাকে আর কোনো পরিশ্রম করতে হবেনা, বসে বসে খেয়ে বাঁচতে পারবেন! 
-হ্যাঁ , ঠিক তা ই! 
-তারপর ? 
-তারপর সে সুস্থ হয়ে উঠলো। ইঞ্জিনিয়ার হলো । একবছরের মধ্যে তার চাকরি হয়ে চলে গেল রাজধানী শহরে। 
-আর সেখানেই বিয়ে করে ফেললো আপনাকে না জানিয়ে। তারই সহপাঠী, অনেক বড় ঘরের এক ইঞ্জিনিয়ার মেয়েকে । যেই বিয়ে করলো, আর বাড়িতে আসেনা, টাকা পয়সা দেবারও খবর নেই। বরং টাকার খবর করলেই বলতো তার দেদার দেনা হয়ে গেছে, সেদিকটা সামলানোই মুশকিল হচ্ছে! 
-হ্যাঁ, তা ই ! 
-এরপর আপনি যেদিন গেলেন তার কাছে সামনাসামনি বসে সকল সমস্যা তুলে ধরতে, সেদিন সে আপনাকে একপ্রকার অপমান করে বিদায় করলো। তার বউ শুনিয়ে দিল এমন অশিক্ষিত মানুষদের কেন ঘরে আসার সুযোগ দেওয়া হয় ! এরপর যখন বোনের বিয়ে ঠিক করে তাকে খবর দিতে গেলেন, সে স্পষ্ট করে বলে দিল বাবার সম্পত্তিতে বোনের যে অংশ রয়েছে, তা তার বিয়ের জন্য খরচ করতে পারোনা? নিজের বিয়ের ঋণটাও পরিশোধ করতে পারিনি এখনো! তারপরও আরও একবার আপনি গিয়েছিলেন আপনার স্ত্রী যখন অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে, চিকিৎসার জন্য টাকা পয়সার নেহাত টানাটানি ছিল, আপনি ভেবেছিলেন তারই প্রয়োজনের সময় আপনার স্ত্রীর গয়না তার হাতে তুলে দিয়েছিলেন, সে কথা অন্তত তার মনে পড়বে ! কিন্তু না,তখনো তার পাষাণ হৃদয় গলে নি! তারপর আর কোনো দিন সে মুখো হন নি! সেটাই ছিল মনজু্রের সাথে শেষবারের মতো আপনার সুখদুঃখের কথা নিয়ে আলোচনা। তাইতো? 
-হ্যাঁ উকিল সাব। 
- আর এইবার এসেছিল পৈত্রিক সম্পত্তিতে তার অংশটি বিক্রয় করে নিয়ে নিতে। রাজধানীর অভিজাত এলাকায় সে বাড়ি কিনতে যাচ্ছে। একমাস পর রেজিস্ট্রেশন। আপনার দুঃখ তার জীবনটা আপনিই গড়ে দিলেন, আর শহরে বাড়ি কিনতে যাচ্ছে তার একার নামে।এটা কেন হবে? তাইতো? 
- হ্যাঁ, জমির চাচা বলেছেন, যেহেতু আমরা এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে একই পরিবারভুক্ত, তার প্রতিটা রক্তবিন্দুতে আমার হাঁড় পাঁজরের নির্যাস মিশ্রিত, তাই এভাবে একা তার নামে জমিজমা ক্রয় করতে পারে না। হয় দুই ভাইয়ের নামে কিনতে হবে, নয়তো তার এই প্রোগ্রাম বাতিল হতে হবে! 
- মাহবুব মিয়া, আইন কি বলে জানেন? পিতৃ সম্পত্তি থেকে আপনি কোনোও ভাবেই তাকে বঞ্চিত করতে পারেন না। আপনি না চাইলেও সে যে কারোও কাছে তার অংশটি বিক্রয় করে দিতে পারে। আপনি মাথা ঠাণ্ডা করে ভাবুন আমি কি বলতে চাইছি। এই মুহূর্তে আপনার পাড়া প্রতিবেশী যাদের পরামর্শে আপনি ভাইয়ের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে এগিয়ে এসেছেন, যখন এই ভাইয়ের পড়াশোনা নিয়ে প্রতিনিয়ত মাথার ঘাম পায়ে ঝরাচ্ছিলেন, তখন তাদের কয়জন আপনার সহযোগিতায় এগিয়ে এসেছিল ? না কেউ আসেনি, দশটি টাকা দিয়েও আপনাকে কেউ সাহায্য করেনি! তাই না? আজ তারাই হয়ে উঠেছে আপনার দরদি, আপনার পরামর্শদাতা ! আপনার কি মনে হয় সত্যি সত্যি তারা আপনার মঙ্গল কামনা করছেন? 
- না উকিল সাব, কেউ কখনও একটি কানাকড়ি দিয়েও কোনো সহযোগিতা করে নি। কিন্তু এখন যা বলছে, তাও তো একেবারে অযৌক্তিক নয়! 
- না না, অযৌক্তিক আমি বলছি না। আপনার কেসটা আমি অবশ্যই নিতে পারি। জানি আপনি যেমন করেই হোক আমার ফিজটাও দিয়ে যাবেন। আমার এখানে লোকসানের কিছু নেই, বরং পেশার দিক দিয়ে কেসটা নেওয়া আমার কর্তব্য। কিন্তু আমি এক উকিল হিসেবে জানি, এই কেসের মাধ্যমে আপনি উপকৃত হবেন না, যেভাবে চাইছেন। অথবা যেভাবে আপনার প্রতিবেশিরা পরামর্শ দিচ্ছেন। বরং বছরের পর বছর ধরে কেস খেলতে গিয়ে আপনার যেটুকু বিষয় সম্পত্তি অবশিষ্ট রয়েছে, শরীরে যেটুকু শক্তি সামর্থ্য রয়েছে, তা ও শেষ করে দিয়ে অবশেষে হা-ঘরে হয়ে কেবল আফসোস করতে হবে। তাই আমি বলি কি, যা হবার হয়ে গেছে। ভাইয়ের অংশটি নির্বিঘ্নে তাকে দিয়ে দিন। আর মনোনিবেশ করুন আপনার ক্লাস টেনে পড়া ছেলেটির দিকে। চেষ্টা করুন ওকে মানুষ করে গড়ে তুলতে। আপনি পারবেন। এতো শ্রম করে, সারা এলাকার কেউ যা করতে পারেনি, আপনি ভাইকে ইঞ্জিনিয়ার বানিয়ে তা করে দেখিয়েছেন। এবার ছেলেটি যদি মানুষ হয়, সে তো আর ভাইয়ের মতো দূরে সরে যাবেনা। সে হবে একান্তই আপনার। বিশেষ করে ছেলেটি এখন মোটামুটি সমঝদার, সে অন্তত উপলব্ধি করতে পারবে আপনার বেদনা, ভাইকে নিয়ে আপনার উপলব্ধি। আর এটা যদি না চান, তাহলে কাল হয়তো এই কেসের খরচাপাতি জোগাড় করতে এই ছেলেটিকেই আপনি হাজিরা করতে পাঠাতে বাধ্য হবেন। বলুন এবার কি করবেন? এক উকিলের কথা মানবেন, নাকি আপনার সেই প্রতিবেশিদের, যারা আপনাকে উস্কে দিয়ে দূরে থেকে কেবল মজা দেখবেন? 
- উকিল সাব, আমার কাগজগুলো কোথায়? 
- কেন, কি করবেন ওগুলো দিয়ে? 
- আপনি আজ আমার চোখ আর বিবেক খুলে দিলেন। এগুলো সব পুড়িয়ে ফেলবো। জীবনে আরও একবার চ্যালেঞ্জ নেবো। দেখি ছেলের মধ্য দিয়ে আমার আশা আকাঙ্ক্ষা পূরণ হয় কি না। ধন্যবাদ উকিল সাব, এই পরামর্শের জন্য আপনাকে কত টাকা ফিজ দিতে হবে? 
- সে অনেক, তবে এখন নেবো না সেই ফিজ। যখন আপনার ছেলে কাজে লেগে যাবে, তার কাছ থেকে আমার ফি'টা ঠিক আদায় করে নেবো! 
ঝড় আসে প্রবল বেগে। এক সময় তা ঝিমিয়ে যায়। অবশেষে রেখে যায় এক মৃদুমন্দ সমীরণ ছোঁয়া। মাহবুব মিয়ার শেষ প্রশ্বাসে অনুভূত হয়েছিল সেই ঝড় শেষের হালকা ঠাণ্ডা পরশ। 

  সময় এগিয়ে যায় তার পথে, অবিশ্রান্ত নদীস্রোতের মতো। উকিল বাবুদের চেম্বারে কত লোক আসে যায়। অনেককেই মনে রাখা দায়। কেউ কেউ আবার ভীষণভাবে ছোঁয়া রেখে যায়। 
সকালবেলা সবেমাত্র চেম্বারে প্রবেশ করেছেন শহরের ডাকসাইটে উকিল শাহীন লস্কর। গায়ের কোটটা খুলে সবেমাত্র রেখেছেন চেয়ারের পিঠে। পানির গ্লাসটা হাতে তুলে নিয়েছেন। এমন সময় চেম্বারের বাইরে শুনতে পেলেন পিএ-র সাথে কারো জোর কথাবার্তা। পিএ চাইছে আগে বিষয়বস্তু জেনে, কাগজপত্র দেখে, স্যারকে দেখানোর পরই পার্টি দেখা করতে পারবে স্যারের সাথে। কিন্তু পার্টি নাছোড়বান্দা। কোনো বিষয় আশয় নেই, নেই কোনও কাগজপত্র। শুধু সাক্ষাৎ আবশ্যক উকিল বাবুর সাথে। 
- মইনুল, বলে ডাক দিলেন পিএ-কে। 
- জ্বি স্যার। 
- ব্যাপারটা কি ? 
- স্যার.. বলতে না বলতেই দরজা ফাঁক করে দুম করে প্রবেশ করলেন সুবিন্যস্ত বসন পরিধান করা এক সুঠাম দেহের ভদ্রলোক। -আয় বাবা মাসরুর, বলে একটি ছেলেকে ভেতরে ডেকে নিলেন। বসে পড়লেন এডভোকেট লস্করের সামনের চেয়ারে। 
- উকিল সাব, মনে পড়ে,আজ থেকে এগারো বছর আগে শেষবারের মতো এসেছিলাম আপনার চেম্বারে। আমি নবীনকান্দির মাহবুব মজুমদার। সেদিন এসেছিলাম আমার ইঞ্জিনিয়ার ভাইয়ের বিরুদ্ধে কেস করতে। আপনিই ফিরিয়ে দিয়েছিলেন কেস না করে ছেলের পড়াশোনার প্রতি যত্নবান হতে। আপনার দোয়ায় আর আশির্বাদে আজ আমাদের ছেলে এমবিএ ডিগ্রি নিয়ে এক এক্জিকিউটিভ অফিসার। বলেই ছেলের পিঠে রাখলেন পরিতৃপ্তির একখানা হাত। মাত্র দুই কাঠা মাটি নিয়ে এই শহরেই তৈরি হয়েছে আমাদের একটি ছোট্ট ঘর। এই সবই হয়েছে কেবল আপনার বদান্যতায়। সেদিন যদি ভাইয়ের বিরুদ্ধে কেস ঠুকতে আপনি বারণ না করতেন, নিজ সন্তানের প্রতি মনোনিবেশ করার পরামর্শ না দিতেন, তাহলে জানিনা কবেই হয়তো হাজিরা সন্ধান করে আপনার ঘরেও পৌঁছে যেতাম- এই ছেলেটিকে নিয়ে। জানেন উকিল সাব, যেদিন আমাদের ছেলে এই পোস্টে জয়েন করলো,পরের সপ্তাহেই আমার ভাই এসেছিল সস্ত্রীক- তার ভাতিজাকে অভিনন্দন জানাতে। নিয়ে এসেছিল তার ছোট ছোট বাচ্চা দুটোকে। আমার মাসরুরের হাত ধরে বলেছে সে যেন তার ছোট ভাই-বোন দুটোর পড়াশোনায় গাইড করে যায়। ওরা যেন তার মতো মানুষ হয়! জানেন উকিল সাব, এই সবকিছু হয়েছে কেবল আর কেবল আপনার জন্য। আপনার জন্যই আজ আমাদের দুটি বিচ্ছিন্ন পরিবার ফের এক হতে পেরেছে। 
- বাহ, এ তো সুন্দর ঔপন্যাসিক কাহিনী শুনালেন যেন। আসলে আপনার প্রত্যয় আর আপনার নির্ণয়ের উপর আমার আস্থা হয়ে গিয়েছিল, ভাইয়ের জন্য যদি আপনি এতোটা করতে পেরেছেন, নিজের ছেলের জন্য ও পারবেন নিশ্চিতভাবে। কিন্তু শঙ্কা ছিল আমার যুক্তি মেনে নিতে পারবেন কি না! কিন্তু আপনার সুন্দর মন এবং সঠিক সিদ্ধান্ত নেবার মানসিকতা আপনাকে আজ সফলতার মুখ দেখিয়েছে- তার জন্য আজ আমি নিজেকে ধন্য মনে করছি। সুখী থাকুন অবশেষ জীবন, নিজের ভাই বেরাদর, পরিবার পরিজনদের নিয়ে। 
- কিন্তু উকিল সাব, আগামী রবিবার আমাদের ছেলের বিয়ে, আপনাকে কিন্তু আসতেই হবে সপরিবারে। এই কার্ডটি রাখুন- বলে অত্যন্ত ঝকঝকে সুন্দর একটি বিয়ের কার্ড উকিল বাবুর হাতে তুলে দিলেন আজকের সুখী পিতা মাহবুব মজুমদার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *