মা এক মায়াবী ছায়া।

কলমে…অধিরাজ দাস, করিমগঞ্জ

মা আমি আছি জেগে,
তোমারই মায়াতেই মগ্ন।
যখন হারিয়ে ফেলি জিবনের রাস্তা,
পাশে থাকে না তো কেউ তুমি আঙুল ধরো।

আমি যখন ফেলি চোখের জল,
ব্যর্থ দিন এর দিনগোনার শেষ এ।
তখন রাস্তা সটিক না হলেও,
তুমি সেই পথ দেখাও পাহারা দিয়ে।

আমার স্বপ্ন তুমি,
আমার জিবনের আশা তুমি।
আমি আছি যেমন করেই,
তবুও চোখের জল ফেলতে দেবো না।

আমি কাঁদলে তুমি ও লুকিয়ে
অকারণে চোখের জল ফেল মাটিতে।
আমার তোমার সন্তান হতে পারিনি,
তবুও তোমায় আশ্রয় এ আমি সুরক্ষিত।

আমি দেখেছি তোমায়,
বলতে পারিনি সেদিন।
আমার জন্য রাত জাগো।
আমার প্রহরী হয়ে আমার সুরক্ষায়।

আমি বৃষ্টিতে অকারণে ভিজে ঘরে ফিরলে,
তুমি দৌড়ে ভিজে এসে আমার মাথায় ধরো ছাতা।
আমি রৌদে থেকে ফিরলে,
তুমি ঠান্ডা জিনিষ নিয়ে আসো চলে।

আমার জ্বর ছলে তুমি,
সারারাত সেবা করতে ব্যস্ত।
আমার শত দুষ্টুমি তুমি,
বক্ষে না নিয়ে হাসির ছলে দাও উড়িয়ে।

আমি আছি যেমন কোন সীমান্তে,
তবুও একদিন হয়নি এমন তোমাকে মনে করিনি।
অবিরাম ফোন কল এর ভীড়ে,
তোমার ফোন ধরি আগে।

তুমি আমার মা
তুমি কারোর বোন
তুমি কারোর স্ত্রী
তাই তো সর্বদিকে তুমি পুজিত।

আমি খারাপ ছেলে স্বার্থপর দুনিয়ায়,
এক তুমিই বকে সোনা আমার ভালো।
আমায় যতই খারাপ উপাধি দিক
আমি আসতে চাই, তোমার কাছে বার বার।

দিনশেষ এ তোমার কোলে বসে
সারাদিন এর ঘটনা বলা।
কিছু হাসি আর কিছু গল্পের খেলারঘর এ,
তুমি সমস্যার সমীকরন তুমি।

আমি যত টুক পেরেছি করেছি,
তুমি ছিলে পাশে সবসময়।
আজ বড় হয়ে ছেড়েছি সংগ,
তাই পাশা উল্টে গেল সমীকরন এর।

আজ মাতৃদিবস এর শুভ মুহুর্তে,
সমস্ত মায়ের প্রতি এই কবিতা।
কেউ ধর্ষন না হয়, কেউ সমাজের কাছে ছোট না হয়,
সবাই স্বাধীন হয়ে বাঁচে এই কামনা করিলাম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *